তুলসী পাতার উপকারিতা

তুলসি পাতা উপকারী একথা প্রায় সবারই জানা। কিন্তু তুলসিপাতা খেলে কোনো উপকারগুলো পাওয়া যায় সেকথা অনেকেরই অজানা। ওষুধ হিসেবে তুলসিপাতার ব্যবহার বেশ পুরোনো। এই পাতায় আছে অ্যান্টি ইনফ্লেমেটরি ও অ্যান্টি অক্সিডেন্ট উপাদান। এগুলো মারাত্মক সব রোগ যেমন ক্যান্সার, ডায়াবেটিস, হৃদরোগ ইত্যদির বিরুদ্ধে লড়াই চালিয়ে যেতে পারে। এটি নানা গুণে অনন্য বলেই হাজার বছর ধরে যোগ আছে ওষুধের তালিকায়।

তুলসী পাতার উপকারিতা

সর্দি-কাশি কমিয়ে দেয়

এটি খুব পরিচিত চিত্র যে, ঠান্ডা লাগলে অর্থাৎ সর্দি-কাশি হলে তুলসি পাতা খাওয়া হয় ওষুধ হিসেবে। সর্দি ও কাশি সারাতে এটি খুব দ্রুত কাজ করে। কারও বুকে কফ বসে গেলে তাকে প্রতিদিন সকালে তুলসি পাতা, আদা ও চা পাতা ভালোভাবে ফুটিয়ে তাতে মধু ও লেবু মিশিয়ে খেতে দিন। এতে দ্রুতই উপশম মিলবে।

গলা ব্যথা দূর করে

গলা ব্যথার সমস্যায় ভুগলে আস্থা রাখুন তুলসি পাতায়। কারণ এই সমস্যা দূর করতে তুলসি পাতার জুড়ি মেলা ভার। শ্বাসকষ্টের সমস্যা কমাতেও তুলসি পাতা বেশ উপকারী। করোনা মহামারির এই সময়ে তাই নিয়মিত তুলসি পাতা খাওয়ার অভ্যাস করুন। কয়েকটি তুলসি পাতা ফুটিয়ে সেই পানি দিয়ে গার্গল করলে গলা ব্যথা দ্রুত সেরে যায়।

ক্যান্সার প্রতিরোধ করে

ক্যান্সার এক মরণঘাতি অসুখের নাম। এই অসুখ দূরে রাখতেও সাহায্য করে তুলসি পাতা। এই পাতায় আছে রেডিওপ্রটেকটিভ উপাদান যা টিউমারের কোষগুলোকে মেরে ফেলে। এতে আরও আছে ফাইটোকেমিক্যাল যেমন রোসমারিনিক এসিড, মাইরেটিনাল, লিউটিউলিন এবং এপিজেনিন। এসব উপাদান ক্যান্সারের বিরুদ্ধে কাজ করতে কার্যকরী। অগ্নাশয়ে যে টিউমার কোষ দেখা দেয় তা দূর করতেও তুলসী পাতা দারুণ উপকারী। পাশাপাশি দূরে রাখে ব্রেস্ট ক্যান্সারও।

রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়

রোগ প্রতিরোধ করার ক্ষমতা বাড়াতে সাহায্য করে তুলসি পাতা। অ্যাজমা, ফুসফুসের সমস্যা, ব্রঙ্কাইটিস ইত্যাদি মোকাবিলায় কাজ করে এই পাতা। জ্বর সারাতেও তুলসি পাতা সমান উপকারী। তুলসি পাতা ও এলাচ পানিতে ফুটিয়ে সেই পানি পান করলে খুব সহজেই বিভিন্ন রোগ থেকে মুক্তি পাওয়া যায়। ক্ষতস্থানে তুলসি পাতা বেটে লাগালে তা দ্রুত শুকায়।

ওজন কমায়

তুলসি পাতা খেলে তা রক্তে সুগারের মাত্রা ও কোলেস্টরল দুটোই রোধ করে। তাই খুব সহজেই ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখা যায়। সাম্প্রতিক এক গবেষণায় দেখা গেছে যে, তুলসি দিয়ে তৈরি ২৫০ মিলিগ্রামের একটি ক্যাপসুল প্রতিদিন খাওয়ার ফলে ওবেসিটি ও লিপিড প্রোফাইল নিয়ন্ত্রণ করা যায়। তবে যেকোনো ওষুধ খাওয়ার আগে অবশ্যই চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে।

ডায়াবেটিস দূরে রাখে

তুলসি পাতা ইনসুলিন উৎপাদনের কাজ করে। প্রতিদিন খাওয়ার আগে তুলসি পাতা খেলে রক্তে সুগারের মাত্রা কমে। তুলসি অ্যান্টি ডায়াবেটিক ওষুধের কাজ করে। তুলসিতে থাকা স্যাপোনিন, ত্রিতারপিনিন ও ফ্ল্যাবোনয়েড ডায়বেটিস রোধ করতে কার্যকরী।

তুলসী পাতার পুষ্টিগুণ

যদিও তুলসী পাতার পুষ্টি উপাদান নির্দিষ্ট বৈচিত্র্য এবং ক্রমবর্ধমান অবস্থার উপর নির্ভর করে সামান্য পরিবর্তিত হতে পারে, তারা সাধারণত নিম্নলিখিত পুষ্টি ধারণ করে:

ভিটামিন: তুলসী পাতা ভিটামিন এ এবং সি এর একটি ভাল উৎস। ভিটামিন এ দৃষ্টিশক্তি, রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা এবং স্বাস্থ্যকর ত্বকের জন্য গুরুত্বপূর্ণ, অন্যদিকে ভিটামিন সি একটি অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট যা রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা এবং কোলাজেন উৎপাদনে সহায়তা করে।

খনিজ পদার্থ: তুলসী পাতায় ক্যালসিয়াম, ম্যাগনেসিয়াম, পটাসিয়াম এবং আয়রন সহ বিভিন্ন খনিজ উপাদান রয়েছে। ক্যালসিয়াম শক্তিশালী হাড় এবং দাঁতের জন্য অপরিহার্য, যখন ম্যাগনেসিয়াম এবং পটাসিয়াম স্নায়ু ফাংশন, পেশী স্বাস্থ্য এবং ইলেক্ট্রোলাইট ভারসাম্য বজায় রাখতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। লোহা লাল রক্তকণিকা উৎপাদন এবং আয়রনের অভাবজনিত রক্তাল্পতা প্রতিরোধের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।

ফাইটোকেমিক্যালস: তুলসী পাতায় প্রচুর পরিমাণে ফাইটোকেমিক্যাল রয়েছে, যার মধ্যে রয়েছে ইউজেনল, রোসমারিনিক অ্যাসিড এবং ইউরসোলিক অ্যাসিড। এই যৌগগুলিতে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট এবং অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি বৈশিষ্ট্য রয়েছে, যা ভেষজটির স্বাস্থ্য উপকারে অবদান রাখে।

প্রয়োজনীয় তেল: তুলসী পাতায় অপরিহার্য তেল রয়েছে, যেমন ইউজেনল, যা ভেষজটিকে তার বৈশিষ্ট্যযুক্ত সুগন্ধ দেয়। এই তেলগুলিতে অ্যান্টিমাইক্রোবিয়াল বৈশিষ্ট্যও রয়েছে এবং এটি নির্দিষ্ট ব্যাকটেরিয়া এবং ছত্রাকের বিরুদ্ধে লড়াই করতে সহায়তা করতে পারে।

অন্যান্য যৌগ: তুলসী পাতায় ফ্ল্যাভোনয়েড এবং ট্যানিন রয়েছে, যা তাদের অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট এবং অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি প্রভাবের জন্য পরিচিত উদ্ভিদ যৌগ। এগুলিতে উদ্বায়ী যৌগও রয়েছে, যেমন লিমোনিন এবং লিনালুল, যা ভেষজটির সুগন্ধযুক্ত বৈশিষ্ট্যগুলিতে অবদান রাখে।

এটি লক্ষণীয় যে তুলসী পাতার পুষ্টির গঠন পরিবর্তিত হতে পারে যদি সেগুলি শুকানো হয় বা চা বা নির্যাসের মতো ভেষজ প্রস্তুতিতে ব্যবহার করা হয়। উপরন্তু, এই পুষ্টির পরিমাণ চাষের পদ্ধতি এবং তুলসীর নির্দিষ্ট জাতের উপর নির্ভর করে পরিবর্তিত হতে পারে।

তুলসী পাতার অপকারিতা 

তুলসী পাতা, যখন মাঝারি পরিমাণে খাওয়া হয়, সাধারণত বেশিরভাগ মানুষের জন্য নিরাপদ বলে মনে করা হয়। যাইহোক, যে কোনও ভেষজ বা সম্পূরকগুলির মতো, সম্ভাব্য পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া বা মিথস্ক্রিয়া হতে পারে যে সম্পর্কে সচেতন হতে হবে। এখানে তুলসী পাতার সাথে সম্পর্কিত কিছু সম্ভাব্য পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া রয়েছে:

রক্ত-পাতলা করার প্রভাব

তুলসী পাতায় হালকা রক্ত-পাতলা করার বৈশিষ্ট্য থাকতে পারে, যা রক্ত জমাট বাঁধতে হস্তক্ষেপ করতে পারে। আপনি যদি রক্ত-পাতলা করার ওষুধ গ্রহণ করেন বা রক্তপাতের ব্যাধি থাকে তবে তুলসি পাতা অতিরিক্ত খাওয়ার আগে আপনার স্বাস্থ্যসেবা প্রদানকারীর সাথে পরামর্শ করার পরামর্শ দেওয়া হয়।

হাইপোগ্লাইসেমিয়া

তুলসি পাতা রক্তে শর্করার মাত্রা কমাতে পারে। ডায়াবেটিসে আক্রান্ত ব্যক্তি বা যারা রক্তে শর্করা কমানোর জন্য ওষুধ গ্রহণ করেন তাদের হাইপোগ্লাইসেমিয়া (কম রক্তে শর্করা) এড়াতে তুলসি পাতা খাওয়ার সময় তাদের রক্তে গ্লুকোজের মাত্রা নিবিড়ভাবে পর্যবেক্ষণ করা উচিত।

গর্ভাবস্থা এবং বুকের দুধ খাওয়ানো

গর্ভাবস্থায় এবং বুকের দুধ খাওয়ানোর সময় তুলসি পাতার নিরাপত্তার বিষয়ে সীমিত তথ্য পাওয়া যায়। এই সময়কালে পরিপূরক হিসাবে তুলসি পাতা ব্যবহার করার আগে একজন স্বাস্থ্যসেবা পেশাদারের সাথে পরামর্শ করার পরামর্শ দেওয়া হয়।

অ্যালার্জির প্রতিক্রিয়া 

কিছু ব্যক্তির তুলসী পাতায় অ্যালার্জি থাকতে পারে। তুলসী পাতা খাওয়ার পর যদি আপনি ফুসকুড়ি, চুলকানি, ফোলাভাব বা শ্বাস নিতে অসুবিধার মতো উপসর্গগুলি অনুভব করেন তবে ব্যবহার বন্ধ করুন এবং চিকিত্সার পরামর্শ নিন।

ওষুধের সাথে মিথস্ক্রিয়া

তুলসী পাতা কিছু ওষুধের সাথে যোগাযোগ করতে পারে, যেমন অ্যান্টিকোয়াগুলেন্টস (রক্ত পাতলাকারী), অ্যান্টিডায়াবেটিক ওষুধ এবং লিভার দ্বারা বিপাকিত ওষুধ। আপনি যদি কোনও ওষুধ গ্রহণ করেন তবে আপনার রুটিনে তুলসি পাতা অন্তর্ভুক্ত করার আগে আপনার স্বাস্থ্যসেবা প্রদানকারীর সাথে পরামর্শ করার পরামর্শ দেওয়া হয়।

এটি লক্ষ করা গুরুত্বপূর্ণ যে এই পার্শ্ব প্রতিক্রিয়াগুলি সাধারণত রিপোর্ট করা হয় না এবং বেশিরভাগ লোকেরা কোনও প্রতিকূল প্রভাব অনুভব না করেই তুলসি পাতা সেবন করতে পারে। যাইহোক, সতর্কতা অবলম্বন করা এবং স্বাস্থ্যসেবা পেশাদারের পরামর্শ নেওয়া সর্বদা একটি ভাল ধারণা, বিশেষ করে যদি আপনার কোনও অন্তর্নিহিত স্বাস্থ্যের অবস্থা থাকে বা ওষুধ সেবন করেন।

কখন তুলসী পাতা খাওয়া থেকে বিরত থাকবেন 

তুলসি পাতা উপকারী। কিন্তু কিছু ক্ষেত্রে এটি এড়িয়ে যাওয়া বা না খাওয়াই উত্তম। চলুন জেনে নেওয়া যাক কোন কোন ক্ষেত্রে তুলসি পাতা এড়িয়ে চলবেন:

গর্ভাবস্থা বা স্তন্যপান করানোর সময়

সামান্য তুলসি পাতা খেলে তা ক্ষতিকর নয় তবে অতিরিক্ত তুলসি পাতা খেলে এসময় নানা রকম জটিলতা দেখা দিতে পারে। তাই এই সময়গুলোতে তুলসি এড়িয়ে চলাই উত্তম। এঅতিরিক্ত তুলসি পাতা খেলে তা নারীর ক্ষেত্রে হতে পারে বন্ধ্যাত্বের কারণ। তাই পরিমিত গ্রহণ করতে হবে।

রক্তপাতের সমস্যা দেখা দিতে পারে

তুলসি পাতা অতিরিক্ত খেলে তা শরীরে রক্তের প্রবাহ বাড়িয়ে দিতে পারে। ফলে শরীরের স্বাভাবিক রক্ত জমাট হওয়ার প্রবণতা নষ্ট হয়ে যায়। এ কারণে দেখা দিতে পারে অতিরিক্ত রক্তপাতের সমস্যা। যেকোনো সার্জারির দুই সপ্তাহ আগে থেকে তুলসি পাতা খাওয়া বন্ধ রাখুন। 

নিম্ন রক্তচাপ

তুলসি পাতায় থাকে অতিরিক্ত পটাশিয়াম। ফলে কমে যেতে পারে রক্তচাপ। তাই কারও নিম্ন রক্তচাপের সমস্যা থাকলে তুলসি পাতা না খাওয়াই ভালো। এই ক্ষেত্রগুলোতে সতর্ক থাকলেই তুলসি পাতা খাওয়া নিরাপদ। এর অনন্য সব উপকারিতার জন্য নিয়মিত খেতে পারেন।

নবীনতর পূর্বতন