সেক্সে রসুনের উপকারিতা

পুরুষের যৌন অক্ষমতার ক্ষেত্রে রসুন খুব ভালো ফল দিয়ে থাকে। রসুনকে 'গরীবের পেনিসিলিন' বলা হয়। কারণ এটি অ্যান্টিসেপ্টিক হিসাবে কাজ করে আর এটি অতি সহজলভ্য সবজি যা আমারা প্রায় প্রতিনিয়ত খাদ্য হিসাবে গ্রহন করে থকি। আপনার যৌন ইচ্ছা ফিরে আনার ক্ষেত্রে এর ব্যবহার খুবই কার্যকরী। কোন রোগের কারণে বা দুর্ঘটনায় আপনার যৌন ইচ্ছা কমে গেলে এটি আপনাকে তা পুনরায় ফিরে পেতে সাহায্য করে। এছাড়া যদি কোন ব্যক্তির যৌন ইচ্ছা খুব বেশী হয় বা তা মাত্রাতিরিক্ত হয় যার অত্যধিক প্রয়োগ তার নার্ভাস সিস্টেমের ক্ষতি করতে পারে এমন ক্ষেত্রে ও রসুন বেশ কার্যকর। আজকের এই আলোচনায় আমরা আপনাদের সাথে সেক্সে রসুনের উপকারিতা নিয়ে আলোচনা করবো এবং সেক্স বৃদ্ধি করে এমন কিছু খাবার নিয়েও কথা বলবো।

সেক্সে রসুনের উপকারিতা

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার তথ্যমতে, প্রতি মিলিলিটার শুক্রাণুতে ২০ মিলিয়নের কম স্পার্ম থাকলে যেকোনো পুরুষ অনুর্বর হতে পারেন। বাজে খাদ্যাভ্যাস, ধূমপান, অ্যালকোহল, অনিয়ন্ত্রিত জীবন, ব্যায়ামে অনীহা প্রভৃতি কারণে দিন দিন অনুর্বরতা বাড়ছে। এক্ষেত্রে বিশেষ সহায়ক মসলা রসুন। কেননা সুস্থ Semen (বীর্য) তৈরিতে রসুনের জুড়ি মেলা ভার।

মূলত যৌন স্প্যামের সমস্যার কারণেই যৌন অক্ষমতা দায়ী এবং পুরুষ যৌন শক্তি কম অনুভব করে। বীর্যে স্প্যামের পরিমাণ কম থাকার কারণে বীর্য পতন এবং বীর্য পানির মত হালকা হয়ে যায়। অনেক পুরুষেরই দেখা যায় বীর্য ধীরে ধীরে পাতলা হতে থাকে এটি অনেক সময় অধিক পরিমাণে হস্তমৈথূন্য জনিত সমস্যার কারণে আবার অনেক সময় অধিক সহবাস করার কারণে এই সমস্যাটি দেখা দিতে পারে।

রসুন খাওয়ার ফলে পুরুষের শুক্রাণুর সংখ্যা বেড়ে যায় এবং শুক্রাণুর সংখ্যা বহুগুণে বৃদ্ধি পায়। অনেক গবেষণার মাধ্যমে প্রমাণিত হয়েছে যে কাঁচা রসুন খাওয়ার ফলে শুক্রাণু ঘন হয় এবং শুক্রাণুর গুণগতমান বাড়ে, যার কারণে বাবা হওয়ার ক্ষেত্রে কোনও সমস্যা নেই। রসুন সেবনে বীর্য ঘন হয়। প্রতিদিন ঘুমানোর আগে রসুনের দুধ পান করা বীর্যকে ঘন করে তোলে এবং ব্যক্তিগত মুহুর্তগুলিতে দ্রুত বীর্যপাত হয় না, যাতে আপনি দীর্ঘ সময় ধরে এই মুহুর্তগুলি উপভোগ করতে পারেন।

রসুন টেস্টোস্টেরনের মাত্রা বাড়াতে সাহায্য করে

টেস্টোস্টেরন (TESTOSTERONE) হরমোন সেক্সের ক্ষেত্রে সবচেয়ে গুরুত্ব ভুমিকা পালন করে, এটি আমাদের অজানা নয়। কিন্তু নিয়মিত সেক্সের কারনে টেস্টোস্টেরনের মাত্রা কমে যেতে পারে। আর শরীরে টেস্টোস্টেরনের মাত্রা বাড়ানোর ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা পালন করে রসুনে থাকা বিভিন্ন অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট (ANTIOXIDANT) উপাদান ।

রসুন বীর্য তৈরি করতে সাহায্য করে

পুরুষের বীর্য অনেক কারনেই পাতলা হয়ে যায়। আর এই বীর্য ঘন করতে রসুনে থাকা অ্যালিসিন(ALLICIN) অত্যন্ত কার্যকারী ভুমিকা পালন করে।

রসুন পুরুষদের শক্তি বাড়াতে সাহায্য করে

রসুনে থাকা বিভিন্ন ভিটামিন এবং পুষ্টি গুনাগুন পুরুষের শক্তি বাড়াতে সাহায্য করে। প্রতি ১০০গ্রাম রসুনে প্রায় ৬২৩ কিলো ক্যালরি শক্তি থাকে। এছাড়া একটি সুস্থ কার্ডিওভাসকুলার সিস্টেম (CARDIOVASCULAR SYSTEM) এর জন্য রসুনে থাকা পুষ্টি গুনাগুন অত্যন্ত দরকারি।

রসুন শুক্রাণু বৃদ্ধি করতে সাহায্য করে

রসুনে থাকা অ্যালিসিনের কারনে রক্তপ্রবাহ বৃদ্ধি প্রায়। যার কারনে পুরুষের বীর্যে শুক্রাণু বৃদ্ধি করতে সহায়ক।

রসুন নারীর সেক্স বৃদ্ধিতে সাহায্য করে

নারীদের সেক্সের ক্ষেত্রে ইস্ট্রোজেন নামক হরমোন ভুমিকা পালন করে থাকে। আর রসুনে ইস্ট্রোজেন(ESTROGEN) থাকার কারনে এটি নারীর সেক্স বৃদ্ধিতে অত্যন্ত কার্যকারী ভুমিকা পালন করে। 

রসুন দ্রুত বীর্যপাত রোধে করতে পারে

দ্রুত বীর্যপাত পুরুষদের জন্য অন্যতম যৌন সমস্যা। এই সমস্যা রোধে অনেকে অনেক কিছুই করে থাকে, তবে আপনার হাতের কাছের সমাধান হতে পারে রসুন। নিয়মিত রসুন খেলে বীর্য ঘন হবে, যা দ্রুত বীর্যপাত রোধে হবে সহায়ক।

রসুন সেক্স কনফিডেন্স বৃদ্ধিতে সাহায্য করে

সেক্সের ক্ষেত্রে কনফিডেন্স থাকা অত্যন্ত  জরুরী। আপনি আপনার পার্টনার কে সুখি করতে পারবেন এরকম কনফিডেন্স না থাকলে আপনি কখনই আপনার পার্টনারের চাহিদা পুরন করতে পারবেন না। তাই কনফিডেন্স থাকা গুরুত্বপূর্ণ, আর এই কনফিডেন্স বৃদ্ধিতে রসুনে থাকা বিভিন্ন উপাদান কাজ করে। কারন রসুনে থাকা অ্যালিসিন(ALLICIN)  রক্তের উচ্চ কোলেস্টেরল এবং উচ্চ রক্তচাপ কমাতে সহায়তা করে।

রসুন লিঙ্গ শক্ত করতে সাহায্য করে

রসুনে থাকা বিভিন্ন উপাদান লিঙ্গের রক্ত প্রবাহে গতি আনে, যার কারনে লিঙ্গে সঠিকভাবে রক্ত প্রবাহিত হতে পারে। এর ফলে লিঙ্গ শক্তিশালি এবং শক্ত হয়।

রসুন যৌনরোগ প্রতিরোধে সাহায্য করে

রসুনে থাকা বিভিন্ন অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট উপাদান  রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধিতে সহায়তা করে, যার ফলে সহজেই কোন রোগ হওয়ার শঙ্কা কমে যায়, যা যৌনরোগ প্রতিরোধে ফল্প্রসু।

সেক্সের জন্য রসুন যেভাবে খাবেন?

প্রতিদিন নিয়ম করে কয়েক কোয়া কাঁচা রসুন খেলে শরীরের যৌবন দীর্ঘ স্থায়ী হয় । যারা পড়ন্ত যৌবনে চলে গিয়েছেন, তারা প্রতিদিন দু'কোয়া রসুন খাঁটি গাওয়া ঘি-এ ভেজে মাখন মাখিয়ে খেতে পারেন। তবে খাওয়ার শেষে একটু গরম পানি বা দুধ খাওয়া উচিত। এতে ভালো ফল পাবেন। যৌবন রক্ষার জন্য রসুন অন্যভাবেও খাওয়া যায়। কাঁচা আমলকির রস ২ বা ১ চামচ নিয়ে তার সঙ্গে এক বা দুই কোয়া রসুন বাটা খাওয়া যায়। এতে স্ত্রী-পুরুষ উভয়ের যৌবন দীর্ঘস্থায়ি হয়।

যেসব সতর্কতা অবল্বন করবেন?

যাদের শরীর থেকে রক্তপাত সহজে বন্ধ হয় না, অতিরিক্ত রসুন খাওয়া তাদের জন্য বিপদ জনক। কারণ, রসুন রক্তের জমাট বাঁধার ক্রিয়াকে বাধা প্রদান করে। ফলে রক্তপাত বন্ধ হতে অসুবিধা হতে পারে। তা ছাড়া অতিরিক্ত রসুন শরীরে এলার্জি ঘটাতে পারে। এসব ক্ষেত্রে অতিরিক্ত রসুন না খাওয়াই উত্তম। রসুন খাওয়ার ফলে পাকস্থলীতে অস্বস্তি বোধ করলে রসুন খাওয়া বন্ধ রাখুন। শিশুকে দুগ্ধদানকারী মায়েদের রসুন না খাওয়াই ভালো। কারণ রসুন খাওয়ার ফলে তা মায়ের দুধের মাধ্যমে শিশুর পাকস্থলীতে ঢুকে শিশুর যন্ত্রণার কারণ ঘটাতে পারে। বিষয়গুলি সম্পর্কে সতর্ক থাকবেন।

যেসব খাবার সেক্স বৃদ্ধি করতে সাহায্য করে

ডিম

ডিম যৌন স্বাস্থ্যের জন্য অত্যন্ত উপকারী একটি খাবার। ডিমে প্রচুর পরিমাণে প্রোটিন থাকে যা শরীরের হরমোনের কার্যক্রম ঠিক রাখে এবং মানসিক চাপ কমাতে সাহায্য করে। প্রতিদিনের সকালের নাস্তায় একটি করে ডিম রাখুন তাহলে আপনার যৌন ক্ষমতা বৃদ্ধি পাবে এবং শরীরও কর্মশক্তি পাবে । 

দুধ

খাঁটি দুধ, দুধের সর, মাখন ইত্যাদি খাবারে প্রচুর পরিমাণে প্রাণিজ-ফ্যাট আছে যা যৌন শক্তি বাড়াতে অত্যন্ত সহায়ক। যদি শরীরে সেক্স হরমোন তৈরি হওয়ার পরিমাণ বাড়াতে চান তাহলে বেশি বেশি ফ্যাট জাতীয় খাবার খাওয়ার দরকার। তবে সেগুলিকে হতে হবে প্রাকৃতিক এবং স্যাচুরেটেড ফ্যাট।

কলা

কলার রয়েছে ভিটামিন এ, বি, সি ও পটাশিয়াম। ভিটামিন বি ও পটাশিয়াম মানবদেহের যৌনরস উত্‍পাদন বাড়ায়। আর কলায় রয়েছে ব্রোমেলিয়ানও। যা শরীরের টেস্টোস্টেরনের মাত্রা বাড়াতেও সহায়ক এবং যৌন ক্ষমতা বৃদ্ধি করে। অতিরিক্ত পটাশিয়ামের অভাবে ত্বক রুক্ষ হয়, কলা সেই পটাশিয়ামের অভাব পূরণ করে দেয়।

বাদাম ও বিভিন্ন বীজ

বাদাম এবং বীজ জাতীয় খাবার বিশেষ করে চিনা বাদাম, কাজু বাদাম, পেস্তা বাদাম, কুমড়োর বীজ, সূর্যমূখীর বীজ, ইত্যাদিতে শরীরের জন্য প্রয়োজনীয় মনোস্যাচুরেটেড ফ্যাট আছে যা শরীরে উপকারী কোলেস্টেরল তৈরী করে। সেক্স হরমোন গুলো ঠিক মতো কাজ করার জন্য এই কোলেস্টেরল অত্যন্ত প্রয়োজনীয়। তাছাড়া এই খাবার গুলি জিঙ্ক-এর অন্যতম সেরা প্রাকৃতিক উত্‍স। এই জিঙ্ক টেস্টোস্টেরোনের মাত্রা বাড়ায় এবং যৌন ইচ্ছা বাড়ানোতেও এদের কার্যকারিতা অনেক।

তৈলাক্ত মাছ

তৈলাক্ত মাছে প্রচুর পরিমাণে ওমেগা ৩ ফ্যাটি এসিড থাকে যা স্বাস্থ্যের জন্য অত্যন্ত উপকারী। ওমেগা ৩ ফ্যাটি মস্তিষ্কে উদ্দীপনা জাগিয়ে তোলে, শরীরের রক্ত চলাচল বৃদ্ধি পায় এবং গ্রোথ হরমোনের নিঃসরন হয়। ফলে যৌন স্বাস্থ্য ভালো থাকে এবং যৌন ক্ষমতা বৃদ্ধি পায়। সামুদ্রিক মাছেও প্রচুর পরিমাণে ওমেগা ৩ ফ্যাটি এসিড থাকে।

ডার্ক চকোলেট

খয়েরি রং এর ডার্ক চকোলেটে আছে ফেনিলেথ্যালামাইন নামক একটি উপাদান যা শরীরে বাড়তি যৌন উদ্দীপনা তৈরী করে। এছাড়াও ডার্ক চকোলেটে প্রচুর পরিমাণে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট আছে। তাই প্রতিদিন আপনার খাদ্য তালিকায় এক টুকরা ডার্ক চকোলেট রাখুন যা আপনার যৌন স্বাস্থ্যের জন্য অত্যন্ত উপকারী। গবেষণায় জানা গেছে যে ডার্ক চকোলেট খেলে সঙ্গীর প্রতি আকর্ষণবোধও বেড়ে যায়।

গরুর মাংস

গরুর মাংসে প্রচুর জিঙ্ক থাকে। তাই মিলনকে আরও আনন্দময় করতে কম ফ্যাটযুক্ত গরুর মাংস খান।

শিমের বীচি

শিমের বীচিতে প্রচুর ফাইটোস্ট্রোজেন থাকে। এটা আপনার যৌন ইচ্ছা এবং যৌন সামর্থ্য বাড়ায়। জাপানিরা যৌন ইচ্ছা বাড়ানোর জন্য খাবারে প্রচুর শিমের বীচি ব্যবহার করে থাকে।

খেজুর

খেজুর খেলে দ্রুত দেহের শক্তি বৃদ্ধি পায়। যৌন শক্তির সঙ্গে খোরমা খেজুরের বিশেষ সম্পর্ক রয়েছে।

মধু

যৌন শক্তি বৃদ্ধি এবং যৌবন ধরে রাখার শ্রেষ্ঠ উপাদান হল মধু। মধু হাজারো রকম ফুল ও দানার নির্যাস। মধুর রয়েছে অসংখ্য উপকারিতা। মধু খেলে মস্তিস্ক শক্তি লাভ করে। দেহের স্বাভাবিক শক্তি তৈরি হয়।

পালং শাক ও অন্যান্য সবজি

শরীরে রক্ত চলাচল বাড়লে যৌন উদ্দীপনাও বাড়ে। পালং শাকে আছে প্রচুর পরিমাণ ম্যাগনেসিয়াম যা শরীরে রক্ত চলাচল বৃদ্ধি করে। তাছাড়া অন্যান্য সবজি যেমন ব্রকলি, লেটুস, ফুলকপি, বাঁধাকপি এগুলোতে রয়েছে ফলেট, ভিটামিন বি সহ অন্যান্য অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট। এগুলো সুস্থ যৌন জীবনের জন্য অত্যন্ত প্রয়োজনীয় কিছু উপাদান।

রঙিন ফল

আঙ্গুর, কমলা লেবু, তরমুজ, পিচ ইত্যাদি রঙিন ফল যৌন ক্ষমতা বৃদ্ধির জন্য অত্যন্ত উপকারী। যৌন স্বাস্থ্য ভালো রাখতে চাইলে প্রতিদিন খাবার তালিকায় রঙিন ফলমূল রাখুন।

কফি বা চা

কফি মিলনের ইচ্ছা বাড়ানোতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে। কফিতে যে ক্যাফেইন থাকে তা মিলনের মুড কার্যকর রাখে। এছাড়া চা পান করলে শরীরে প্রচুর অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট পাওয়া যায়। চা ব্রেইন কে সচল করে, রক্ত চলাচল বাড়ায় ও স্মৃতিশক্তি বাড়াতে সহায়তা করে। প্রতিদিন চা খেলে যৌন স্বাস্থ্য ভালো থাকে।

নবীনতর পূর্বতন